অ্যান্টার্কটিকার ভিনসন পর্বতচূড়ায় প্রথম বাংলাদেশি ওয়াসফিয়া নাজরীন

বাংলাদেশের সর্বকনিষ্ঠ এভারেস্ট বিজয়ী পর্বতারোহী ওয়াসফিয়া নাজরীন অ্যান্টার্কটিকার উচ্চতম পর্বতশৃঙ্গ ভিনসন ম্যাসিফ জয় করেছেন। তিনিই প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বের সবচেয়ে দুর্গম অঞ্চলের এ পর্বতে আরোহন করলেন। ‘বাংলাদেশ অন সেভেন সামিট’ ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে এটি তাঁর চতুর্থ পর্বতচূড়া জয়।

ভিনসনের শীর্ষচূড়া থেকে ওয়াসফিয়া স্যাটেলাইট ফোনের মাধ্যমে তাঁর ‘বাংলাদেশ অন সেভেন সামিট’-এর মুখপাত্র করভী রাকসান্দকে গত ৫ জানুয়ারি রাতে এ কথা জানান। তিনি বলেন ‘এ পর্যন-  যে কটা পর্বত চূড়ায় তিনি আরোহন করেছেন তার মধ্যে এটাই ছিল সবচেয়ে কঠিন। এ কঠিন কাজটি তিনি করেছেন দেশের জন্য। যাতে আমরা নতুন আশা নিয়ে নতুন বছর শুরু করতে পারি যে, আমরা যদি আন-রিকভাবে কাজ করি তাহলে সব কিছুই করা সম্ভব।’

ওয়াসফিয়াকে তার গৌরবময় অর্জনের জন্য অভিনন্দন জানিয়ে ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপার্সন স্যার ফজলে হাসান আবেদ বলেন, ‘ওয়াসফিয়া বাংলাদেশি নারীদের দৃঢ় ও সাহসী মনোভাবকে বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরেছেন। যেহেতু আমরা বিশ্বের সব নারীর জন্য সমমর্যাদা অর্জনের লক্ষ্যে কাজ করছি তাই ওয়াসফিয়া সবার কাছে অনুপ্রেরণার হয়ে থাকবেন।’
 
বছরের ৮ নভেম্বর পতাকা প্রদান অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ওয়াসফিয়া ‘ভিনসন ম্যাসিফ’ পর্বত অভিযানের সূচনা করেন। তিনি ২৯ নভেম্বর কানাডায় পৌঁছান। সেখানে তিনি ৩০ বছর আগে প্রথম সেভেন সামিট জয়ী প্যাট্রিক মোরোর কাছ থেকে শীতল ঊষর জনহীন প্রান-রে তিন সপ্তাহের একটি বিশেষ প্রশিক্ষণ নেন এবং সেদেশের  আবহাওয়ায় নিজেকে অভ্যস- করে  তোলেন। সবশেষে তিনি ২৯ ডিসেম্বর ২০১২ চিলি থেকে অ্যান্টার্কটিকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন।

বাংলাদেশের নারীপ্রগতির চল্লিশ বছর উদ্‌যাপন এবং অজস্র প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে মানুষের সাফল্যগাথাকে তুলে ধরতে ওয়াসফিয়া সাত মহাদেশের সাতটি শীর্ষ পর্বতচূড়া জয়ের এই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেন।

আমাদের কর্মস্থল

                

ব্র্যাক কুইজ

কোনটি দারিদ্র্য দূরীকরনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী?

বিকল্প যোগাযোগ পন্থা